আজ ২৫শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৮ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

হোসেনপুরে অটোরিক্সা চোর চক্রের নারী সদস্য আটক

প্রতিনিধি: জুবায়ের বয়ান

কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরে তানিয়া আক্তার (২৫) নামে অটোরিক্সা চোর চক্রের সক্রিয় এক নারী সদস্যকে আটক করে জনতা পুলিশে সোপর্দ করেছে। সোমবার (২০ জুন)  দুপুরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চত্বর থেকে জনতা তাকে আটক করে ইউএনও’কে জানায়। পরে তাকে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

অটোরিক্সা চোর চক্রের সদস্য তানিয়া আক্তার কিশোরগঞ্জ সদরের হাসিমুদ্দিনের মেয়ে ও আবদুল্লাহর স্ত্রী বলে জানা গেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, দীর্ঘদিন যাবৎ কৌশলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ বিভিন্ন জায়গা থেকে ব্যাটারিচালিত অটোরিক্সা ভাড়া করে কখনো ডিবি পুলিশ পরিচয়ে, অথবা থানা পুলিশ পরিচয় বা প্রশাসনিক কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে বাসা বাড়ি বা অফিস থেকে মালামাল আনবার কথা বলে চালককে বাসাবাড়িতে পাঠিয়ে যাত্রীবেশে অটোর মধ্যে বসে থাকে। চালক একটু আড়ালে চলে যাওয়া মাত্রই চোর চক্র অটোরিক্সা নিয়ে উধাও হয়ে যায়।

এ রকম ঘটনা প্রায়ই হওয়ার নজির থাকায় অটোচালকদের টনক নড়েছে। সোমবার (২০ জুন) এরকমই ঘটনা সৃষ্টির উপক্রম হলে চালকের বুদ্ধিমত্তায় ওই নারী চোরকে জনতা আটক করতে সক্ষম হয়।

কিশোরগঞ্জ সদরের বৌলাই গ্রামের চালক পিয়াস জানায়, সোমবার (২০ জুন) চোর চক্রের দু’জন মিলে কিশোরগঞ্জ থেকে ৪০০ টাকায় অটোরিক্সাটি ভাড়া করে হোসেনপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে সিরিঞ্জ বাক্স নেওয়ার কথা বলে।

চালক পিয়াসকে সঙ্গে নিয়ে দোতলায় যাওয়ার কথা বলে ওই নারী কৌশলে সটকে যাওয়ার চেষ্ট করে। অন্যদিকে যাত্রী বেশে বসে থাকা অপর পুরুষ অটোরিক্সা নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে।

এ সময় চালকের সন্দেহ হলে পিছনে ফিরে দেখতে পেয়ে চিৎকার দিলে জনতা পথ রোধ করলে অটোতে থাকা পুরুষ পালিয়ে গেলেও ওই নারী চোরকে আটক করে ফেলে।

পরে হোসেনপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রাবেয়া পারভেজকে অবহিত করা হলে তিনি আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য হোসেনপুর থানা পুলিশকে নির্দেশ দেন।

চোর আটকের খবরে ভুক্তভোগীরা জানান, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের স্বর্ণের চেইন, টাকা ও মোবাইল ফোন চুরির হিড়িক পড়েছে। এর মাধ্যমে চোর চক্রের অন্যদেরও খোঁজে বের করা সম্ভব হবে।

উল্লেখ্য, এর আগেও স্বর্ণের চেইন চুরি যাওয়ার সময় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ভেতর থেকে হাতে নাতে একাধিক চোরকে জনতা আটক করলেও কৌশলে তাদেরকে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগ থাকায় আইনগত ব্যবস্থা না নেওয়ায় ইউএনও’র হস্তক্ষেপে এবার আর তা হলো না।

হোসেনপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. আবদুল্ল্যাাহ আল শামীম জানান, ইউএনও ম্যাম নিজেই এবার উদ্যোগী হয়ে কেউ বাদী না হলে এবার তিনি নিজে বাদী হয়ে হলেও আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণে আগ্রহী হয়ে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নিতে আশ্বস্ত করেন।

হোসেনপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ মাসুদ আলম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category